• যখন কোন ট্রেড়ে আপনার লস হয় তখন আপনার মানসিক অবস্থা কেমন থাকে?
  • আপনার কি কখনো এমন মনে হয়েছে যে আপনি যাই করেন না কেন আপনার সবসময় লসই হয়।
  • যখনই আপনার অল্প প্রফিট হয় তখনই আপনি ট্রেড় বন্ধ করে দেন এবং ভাবেন ছোট ছোট প্রফিটই ভালো।
  • আপনার কোন সিদ্ধান্ত নেওযার জন্য অন্যজনের পরামর্শ দরকার হয়।
  • আপনি কি ট্রেড় শেষ করার পর আপনি রাগ, ক্লান্ত, উদাস বা খুশি অনুভব করেন।
  • আপনার এমন মনে হয় যে, হয়ত আপনার সাথে মার্কেটের কোন ব্যাক্তিগত শত্রুতা আছে। যখন আপনি কোন কিছু ক্রয় করেন তখন মার্কেট নিচে যায় অথবা আপনি সেল করার পরে মার্কেট উপরে চলে যায়।
  • আপনার কি এমন মনে হয় যে, মার্কেট একটা পাগলা ষাঁড়ের মত। কখন কোনদিকে যাবে তা বুঝা একেবারেই অসম্ভব। 
  • আপনি কি কখনো রাগে, খুশিতে বা উত্তেজনা বশত ট্রেড় করেছেন?
  • আপনার পুরা পোর্টফলিও কি কখনো লস করেছেন।  যদি করে থাকেন তবে এরপর আপনার প্রতিক্রিয়া কি ছিল।


এগুলো এমন কিছু প্রশ্ন যদি আপনার কাছে এসব প্রশ্নের উত্তর থাকে তবে আপনার নিশ্চয় বুঝতে পেরেছেন ট্রেড়িং সম্পর্কে আপনার মানসিকতা কেমন। যদি আপনার মানসিকতা উপরোক্ত প্রশ্নগুলোর সাথে মিলে যায় তবে ট্রেড়িং সম্পর্কে আপনার চিন্তা ভাবনা বিকশিত করা দরকার।

আপনি যদি ট্রেড় করতে কোন ব্যাক্তিকে দেখে থাকেন তবে  লক্ষ করবেন যে, ট্রেড় চলাকালীন সময়ে সে কোনসময় খুশি কখনো উদাস আবার কখনো ভীত হয়ে যায়। এখন আপনি বলতে পারেন যে যার টাকা ইনভেস্ট আছে সে তো চিন্তিত হবেই। ঠিক আছে তবে এটা জেনে রাখুন যে ট্রেড়িং সাইকোলোজি আপনাকে এমন মনোভাব বিকশিত করাতে সাহায্য করে যাতে আপনি ভয়মুক্ত হয়ে মার্কেটে ট্রেড় করতে পারেন। আপনি যদি মার্কেটে একটি ভয়মুক্ত মনোভাব নিয়ে কাজ করতে চান তবে আপনাকে আগে এটা মেনে নিতে হবে যে লস হওয়া তো ট্রেড়িং এর একটা অংশ। লস তো হবেই। যদি আপনি এমনটা ভাবেন যে, আপনার কাছে যদি এমন কোন টেকনিক বা গাইডলাইন থাকতো যার ফলে আপনার কখনোই লস হবে না, আপনার সব ট্রেড় সফল হবে এবং আপনি শুধু প্রফিটেই থাকবেন, তবে বলে রাখি যে, বাস্তবে তো এটা সম্ভব না। আপনি যদি কোন ট্রেড়ে অংশগ্রহন করেন তবে আপনার প্রফিটও হতে পারে এবং লসও হতে পারে। ট্রেড়িং এ প্রফিট এবং লস হল একই মুদ্রার দুই পিঠ। একটা পয়সা যদি আমি উপরদিকে ছুড়ে মারি তবে কি ঘটতে পারে? দুইটি ঘটনা ঘটতে পারে হয়ত শাপলা, অথবা যমুনা সেতু আসবে। যে কোন একটি হওয়ার সম্ভাবনা ৫০:৫০। একই ভাবে আপনি যদি কোন পরিকল্পনা ছাড়া ট্রেড় করেন তবে আপনার প্রফিট বা লস হওয়ার সম্ভাবনা অর্ধেক অর্ধেক। এখন আমি যদি আপনাকে এমন একটা পদ্ধতি শিখায় যেটার সাহায্যে শাপলা বা যমুনা যে কোন একটি ফলাফল আসার সম্ভাবনা ৮০:২০ হয় তবে কেমন হয়। টস করার সময় মুদ্রার যেই অংশ নিচে থাকবে সেটি আসার সম্ভাবনা ৮০% থাকে। এই যে এখন একটি টেকনিক শিখলেন যার মাধ্যমে আপনার জয়লাভ করার সম্ভাবনা ৮০% হয়ে গেলো ট্রেড়িং এ এই টেকনিকের নাম হয় টেকনিক্যাল এনালাইসিস। টেকনিক্যাল এনালাইসিসের সাহায্যে আপনি একটা ট্রেড়ে প্রফিট করার সম্ভাবনা ৮০% পর্যন্ত বাড়িয়ে ফেলতে পারেন। আশা করি বুঝতে পেরেছেন আমি আসলে কি বুঝাতে চাচ্ছি।


ট্রেড়িং সাইকোলোজি কেন শিখা দরকার


টেকনিক্যাল এনালাইসিসের সাহায্যে একজন ট্রেড়ার যেমন চার্ট এনালাইসিস করা শিখে তেমনি ট্রেড়িং সাইকোলোজি শিখার মাধ্যমে একজন ট্রেড়ার তার আবেগ নিয়ন্ত্রণ করতে পারে। আর একজন ট্রেড়ার যখন তার আবেগ নিয়ন্ত্রণ করা শিখে যায় তখন ট্রেড়িং এ শৃঙ্খলা চলে আসে। আর স্টক মার্কেট কিংবা ক্রিপ্টোকারেন্সি যে কোন মার্কেটে ট্রেড়িং করার জন্য একজন ট্রেড়ারের সুশৃঙ্খল হওয়াটা খুবই জরুরী। বলা হয়ে থাকে যে শেয়ার বাজারে ৯০% মানুষ লস করে এবং ৫% মূলধনে থাকে। এবং শুধুমাত্র ৫% মানুষই শেয়ার বাজার থেকে প্রফিট করে। এবং পুরা শেয়ার মার্কেটের মোট অর্থের ৯০% অর্থই ওই ৫% লোকেরা হোল্ড করে থাকে। এই ৫% লোক তারা হয়ে থাকে যারা টেকনিক্যাল এনালাইসিসের যথাযথ প্রয়োগ করে ট্রেড়িং সাইকোলোজির সাথে। বর্তমানে বেশিরভাগ ট্রেড়ারদের ট্রেড়ের অবস্থা এমন যে, আমার মনে হচ্ছে মার্কেট এখন উপরে যেতে পারে, বা নিচে যেতে পারে। একটা কথা মনে রাখবেন ফাইনান্সিয়াল মার্কেটে আপনি যদি আপনার মনে হওয়ার ভিত্তিতে কাজ করেন তবে মার্কেট আপনার পোর্টফলিও পুরা ধুয়ে দিবে। এমন ভাবে ধুয়ে দিবে যে, এরপর থেকে আপনি বলে বেড়াবেন আরে স্টক মার্কেট, ক্রিপ্টো মার্কেট হচ্ছে  জুয়ার আসর। এখানে তো আমাদের টাকা লস হবেই হবে আমরা যাই করি না কেন। এজন্য আপনার আশেপাশে যদি এমন কোন ব্যাক্তি থাকে যে কোন সময স্টক বা ক্রপ্টো মার্কেটে ট্রেড় করত তবে তাকে মার্কেট সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করলে সে আপনাকে নেতিবাচক উত্তরই দিবে। কারন সে এটাকে জুয়া ছাড়া আর কিছু ভাবে না। আসল কথা হচ্ছে আপনার কি মনে হচ্ছে সেটার ক্রিপ্টোকারেন্সির দুনিয়ায় কোন মূল্যই নেই। মার্কেটের কিছু যায় আসে না আপনার কি মনে হয় বা আপনি কি ট্রেড় নিয়েছেন অথবা আপনার পোর্টফলিও কত বড়। সফর হতে গেলে আপনাকে একটা কথা মনে রাখতে হবে যে মার্কেটে আপনার মনে হওয়ার উপর না বরং দেখার উপর ভিত্তি করে কাজ করতে হবে। এবং দেখার এই জ্ঞান পাবেন টেকনিক্যাল এনালাইসিস থেকে। দেখার উপর মানে এখন কি চার্ট প্যাটার্ন তৈরী হচ্ছে, ব্রেকআউট কোথায় হচ্ছে, সাপোর্ট এবং রেজিস্টেন্স কোথায়, প্রাইস কতটুকু রিট্রেস হতে পারে ইত্যাদি। 


ফুটনোট


এখন, আপনি টেকনিক্যাল এনালাইসিস তো শিখে গেছেন তবে সেটি সঠিকভাবে প্রয়োগ করতো পারছেন না। অথবা মার্কেটে আপনি কি কি ভুল করছেন এসব প্রশ্নের উত্তর পাওয়া যাবে ট্রেড়িং সাইকোলোজিতে। ট্রেড়িং সাইকোলোজি নিয়ে আমাদের পড়াশুনা চলতে থাকবে। পরবর্তী আপডেট পেতে নিচে জিমেইল দিয়ে SUBSCRIBE করে রাখতে পারেন।

Post a Comment

Previous Post Next Post